পোস্টগুলি

“ত্যাগী নেতা”

ছবি
“ত্যাগী নেতা”
নামঃ আলতাফুজ্জামান (মিতা)জন্মোঃ০১-০১-১৯৬০ ছাত্র জীবন থেকে তিনি রাজনীতির সঙ্গে জড়িত।বলতে গেলে ছাত্র জীবন শেষে তিনি রাজনীতির করার জন্য কোন চাকুরী করেননি। অর্থাৎ রাজনীতিটাকেই –তিনি পেশা হিসাবে মেনে নিয়েছেন।রাজনীতির ক্ষাতিরে তিনি সংসার জীবনটা বিলিয়ে দিয়েছেন। ১১ ডিসেম্বর ১৯৮৩ সাল নাগাদ প্রধান সামরিক প্রশাসক হিসাবে যখন স্বৈরাচার সরকারের আবিরভাব ঘটে তখনদিনাজপুর জেলা শহরে আন্দোলন করার জন্য হাতেগনাকয়েকজন তন্মধ্যে আলতাফুজ্জামান আন্যতম।

" গীতাঞ্জলি "

       " গীতাঞ্জলি "
আমার  মাথা নত করে দাও হে তোমার
চরণধুলার তলে ।
সকল অহংকার হে আমার
ডুবাও চোখের জলে ।
নিজেরে করিতে গৌরব দান
নিজেরে কেবলই করি অপমান ,
আপনারে শুধু ঘেরিয়া ঘেরিয়া
ঘুরে মরি পলে পলে ।
সকল অহংকার হে আমার
ডুবাও চোখের জলে ।

"শুধু ইচ্ছে করে "

 "শুধু ইচ্ছে করে " শুধু ইচ্ছে করে গড়ি জীবন তোমার চিরসবুজ মনে,
কাঙ্খিত সেই বাসনা মন মন্দিরে সারাক্ষন অনুরণে ।
তোমার নির্বিকল্প অন্তর আত্মায় কান পেতে নিশ্চল,
মোর অভিযাচিত সুপ্ত চিত্ত মহাসুখে ভরব অবিরল । শুধু ইচ্ছে করে তোমায় আমার এবুকের মাঝে রাখি,
মধুর প্রেমের পরশ নিতে শুধু তোমার কাছে থাকি ।
হাওয়া খেতে যাব আমি তোমায় নিয়ে শ্রী বৃন্দাবনে,
ভালবাসার নির্মল ঘর সাজাব স্বপনের এক শুভক্ষণে । শুধু ইচ্ছে করে তোমার মনে আমি ভ্রমর হয়ে উড়ি,
তোমার মনের সকল ঘরেই আমি প্রান ভরে ঘুরি ।
আদর সোহাগে রেখে সদা আমি দেব তোমায় সুখ,
যতন করে সাজাব আমি তোমার ভালবাসার মুখ । শুধু ইচ্ছে করে রাত নিশীথে সাজাই ফুলেরই বাসর,
সারা জীবন আনন্দে রাঙাই মোদের প্রেমের আসর ।
মায়া-মমতায় জড়ানো ছড়ানো মোদের মধুর স্মৃতি,
সুখে-দুখে মিলে পরস্পরে গড়ব এক নিবিড় সম্প্রীতি । শুধু ইচ্ছে করে একই সাথে থাকি বাঁধা আসুক যতই,
আমরা দুটি প্রাণ এক হয়ে মিলে রুধব মোরা ততই ।
তোমার মনের যত ইচ্ছে পূরণ করে কষ্ট দেব মুছে,
বুকের মাঝে আগলে রেখে অহর্নিশি দুঃখ দেব ঘুচে ।

“ না বলা কথা”

ছবি
 “ না বলা কথা” তোমাকে হয়নি বলা কতটা ভালবাসি
তোমাকে হয়নি বলা এক পলক দেখার
জন্য কতটা উতলা আমি...
তোমাকে হয়নি বলা চোখ বন্ধ করেও
তোমাকে দেখতে পাই...
তোমাকে হয়নি বলা যতটা কষ্ট
তোমাকে দেই তার চেয়ে অনেক
বেশি কষ্ট নিজে পাই...
তোমাকে বলতে পারিনা একা একা তোমার
সাথে কথা বলি কিন্তু
তুমি সামনে আসলে
সবই হারিয়ে ফেলি........

“ সময় যখন থমকে দাঁড়ায় ”

ছবি
শিল্পীঃনচিকেতা অ্যালবামঃ এই বেশ ভালো অাছি ;“সময় যখন থমকে দাঁড়ায় ”
যখন সময় থমকে দাঁড়ায়
নিরাশার পাখি দু’হাত বাড়ায়
খুঁজে নিয়ে মন নির্জন কোন
কি আর করে তখন
স্বপ্ন স্বপ্ন স্বপ্ন
স্বপ্ন দেখে মন

যখন আমার গানের পাখি
শুধূ আমাকেই দিয়ে ফাঁকি
সোনার শিকলে ধরা দেয় গিয়ে
আমি শূন্যতা ঢাকি
যখন এঘরে ফেরে না সে পাখি
নিস্ফল হয় শত ডাকাডাকি
খুঁজে নিয়ে মন নির্জন কোন
কি আর করে তখন
স্বপ্ন স্বপ্ন স্বপ্ন
স্বপ্ন দেখে মন

যখন এমনে প্রশ্নের ঝড়
ভেঙ্গে দেয় যুক্তির খেলাঘর
তখন বাতাস অন্য কোথাও
শোনায় তার উত্তর
যখন আমার ক্লান্ত চরন
অবিরত বুকে রক্তক্ষরন
খুঁজে নিয়ে মন নির্জন কোন
কি আর করে তখন
স্বপ্ন স্বপ্ন স্বপ্ন
স্বপ্ন দেখে মন

যখন সময় থমকে দাড়ায়
নিরাশার পাখি দু’হাত বাড়ায়
খুঁজে নিয়ে মন নির্জন কোন
কি আর করে তখন
স্বপ্ন স্বপ্ন স্বপ্ন
স্বপ্ন দেখে মনhttp://nirrjon.blogspot.com

“ দিন যায় কথা থাকে ”

ছবি
শিল্পীঃ সুবীর নন্দী
অ্যালবামঃ যায় যায় দিন;
দিন যায় কথা থাকে দিন যায় কথা থাকে
সে যে কথা দিয়ে রাখলো না
চলে যাবার আগে ভাবলো না
সেকথা লেখা আছে বুকে।

সে কথা নয়নে আগুন-আল্পনা আঁকে
স্মৃতির পাপিয়া “চোখ গেলো” বলে ডাকে
সে জ্বালা-যন্ত্রণা কাউকে বোলবো না,
বলবো আছি কী যে সুখে।।

মনপাখি তুই থাকরে খাঁচায় বন্দী,
আমি তো করেছি দুঃখের সঙ্গে সন্ধি।
কি আছে পাওনা, তার কাছে দেনা
যাক সে হিসাব চুকে।।

“জাতীয় শোক দিবস”

ছবি
“জাতীয় শোক দিবস” আজ রক্তঝরা ১৫ আগস্ট -
 কেঁদেছিল আকাশ, ফুঁপিয়ে ছিল বাতাস। বৃষ্টিতে নয়, ঝড়ে নয়- এ অনুভূতি ছিল শোকের। পিতা হারানোর শোক। প্রকৃতি কেঁদেছিল; কারণ মানুষ কাঁদতে পারেনি। ঘাতকের উদ্ধত সঙ্গিন তাদের কাঁদতে দেয়নি। কিন্তু ভয়ার্ত বাংলার প্রতিটি ঘর থেকে এসেছিল চাপা দীর্ঘশ্বাস। কী নিষ্ঠুর, কী ভয়াল, কী ভয়ঙ্কর- সেই রাত।
 ভুলতে চায়নি, ভুলতে পারবে না। স্বাধীন বাংলাদেশের ইতিহাসের সবচেয়ে অশ্রুভেজা, কলঙ্কময় রাতের কথা। ১৯৭৫ সালের ১৫ আগস্ট রাতের কথা। যে রাতে স্ত্রী-সন্তানসহ সপরিবারে নিহত হয়েছিলেন স্বাধীন বাংলাদেশের স্থপতি, সর্বকালের সর্বশ্রেষ্ঠ বাঙালি জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান।
বছর ঘুরে রক্তের কালিতে লেখা সে দিন-রাত আবার ফিরে এসেছে।
কবি শামসুর রাহমানের সঙ্গে উচ্চারিত করি_ 'ধন্য সেই পুরুষ, যার নামের উপর রৌদ্র ঝরে/চিরকাল গান হয়ে/নেমে আসে শ্রাবণের বৃষ্টিধারা/যার নামের উপর কখনো ধুলো জমতে দেয় না হাওয়া/ধন্য সেই পুরুষ যার নামের উপর ঝরে/মুক্তিযোদ্ধাদের জয়ধ্বনি।'
 ১৯৭৫ সালের এদিন স্ত্রী বেগম শেখ ফজিলাতুন্নেছা মুজিব, পুত্র- শেখ কামাল, শেখ জামাল ও ১০ বছরের শিশুপুত্র শেখ রা…

এই ব্লগটি থেকে জনপ্রিয় পোস্টগুলি

“ সময় যখন থমকে দাঁড়ায় ”

" কিছু প্রবাদ এবং বিখ্যাত মণীষীদের কথা "

“তুমি অারেকবার অাসিয়া”

“ত্যাগী নেতা”

“অামি একা বড় একা -অামার অাপন কেহ নেই”